প্রবাদ প্রবচন

প্রবাদ প্রবচন  
স্বরবর্ণ
অভাগা যেদিকে চায়, সাগর শুকিয়ে যায়= সর্বত্রই নৈরাশ্য
অতি দর্পে হতলঙ্কা = অতিরিক্ত অহংকারই পতন ঘটায়
আদ্যিকালের বদ্যি বুড়ো = খুব প্রাচীন ব্যক্তি
অধিকন্তু ন দোষায় = প্রয়ােজনের বেশী হলেও ক্ষতি নেই ।
অসারের তর্জন গর্জন সার = গুণহীনের ব্যর্থ আস্ফালন।
অভাবে স্বভাব নষ্ট = অভাবে পড়লে ভাল মানুষও অসৎ হয়।
অল্প বিদ্যা ভয়ঙ্করী = অল্প বিদ্যার অতি দর্প।
অতি চালাকের গলায় দড়ি = বেশি চালাকি করিয়া অন্যকে ঠকাইতে গেলে অনেক সময়ে নিজেকে বিপদে পড়িতে হয়।
অতি লােভে তাঁতি নষ্ট = বেশি লােভে সর্বস্ব হারাইতে হয়।
অনেক সন্ন্যাসীতে গাজন নষ্ট=অনেক লােক হইলে কাজে বিশৃঙ্খলা হয়।।
অর্থই অনর্থের মূল = অর্থ হইতেই যত গােলমালে সৃষ্টি।
অরাঁধুনির হাতে পড়ে রুই মাছ কাঁদে = অযােগ্য লােকের হাতে পড়িয়া ভাল জিনিসও নষ্ট হয়।
আরশির মুখে পড়শীকে দেখা = নিজের মত করে অন্যকে ভাবা।
আড়ালে লােকে রাজার মাকেও ডাইনি বলে = অসাক্ষাতে অন্যের নিন্দা সবাই করে।
আমে দুধে এক হল, আঁটি ঘােসা পড়ে র’ল = দুই পক্ষের মধ্যে বােঝাপড়া হইয়া গেল, অথচ যােগাযােগ করিয়া দিল যে সেই অবাঞ্চিত বলিয়া গণ্য হইল।
আপনি বাঁচলে বাপের নাম = চাচা আপন প্রাণ বাঁচা।
আপনি শুতে ঠাই নেই, শঙ্করাকে ডাকে = নিজের আয় দিয়া নিজে চলিতে পারে না; অথচ অন্যের জন্য খরচ করে।
আগে দর্শনদারী পরে গুণবিচারী = বাহ্যিক সৌন্দর্য দ্বারাই মানুষ প্রথম আকৃষ্ট হয়।
আসলে মুষল নেই চেকি ঘরে চাঁদোয়া= উপযুক্ত ব্যবস্থা অবলম্বনের অভাব।
আপ ভালা তাে জগৎ ভাল = নিজে ভাল হলে সকলই ভাল হয়।
আমড়া গাছে আম হয় না = মন্দ স্বভাবের লােকের কাছে ভাল ব্যবহার আশা করা যায় না।
আপনি আচরি ধর্ম অপরে শিখাও = যা নিজে মান না, তা অপরকে শিখাবে না।
আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ = অবিশ্বাস্য উন্নতি।
আপন পায়ে কুড়াল মারা = নিজের ক্ষতি নিজে করা।
আঙ্গুর ফল টক = পান না তাই খান না।
আদার ব্যাপারির জাহাজের খবর = অনধিকার চর্চা করা।
আটে-পিঠে দড়, তবে ঘােড়ার উপর চড় = কোনও কার্য করিবার যােগ্য না হইলে, সে কার্য করিতে যাওয়া উচিত নয়।
ইদুরে চেনেনা ভাগবত পুঁথি = মূৰ্থ ব্যক্তি গুণীর গুণ বােঝে না।
ইটটি মারলে পাটকেলটি খেতে হয় = যেমন কর্ম তেমন ফল, অর্থাৎ পরের অনিষ্ট করিলে নিজেরও অনিষ্ট হয়।
                                 
উলনে মুক্ত ছড়ানাে = অযােগ্য পাত্রে মূল্যবান বস্তু পান করা।
উচিত কথা বন্ধু বেজার = সত্য কথা বললে আপনজনও রুষ্ট হয়।
উঠন্ত বৃক্ষ পত্তনেই চেনা যায় = কাজের আরম্ভ দেখিয়া কাজের শেষ বুঝা যায় ।
উড়াে খই গােবিন্দায় নমঃ = যে খই হাত হইতে বাতাসে উড়িয়া গেল, তাহা গােবিন্দের নামে নিবেদন।
উদোরপিণ্ডি বুদোর ঘাড়ে = একের দোষ অন্যের উপর চাপানাে।
উনো ভাতে দুনাে বল = অল্প আহারে শক্তি বৃদ্ধি।
উচিত কথায় বন্ধু বেজার = সত্যকথা অপ্রিয় ।
                                 এ
এক হাতে তালি বাজে না = যে কোন কলহেই উভয় পক্ষের কিছু না কিছু দোষ থাকে।
এক কড়ার মুরদ নেই, ভাত মারার গোঁসাই = উপার্জনের ক্ষমতা নাই অথচ খরচ করে প্রচুর।
এক মাঘে শীত যায় না = বিপদ একবারই আসে না।
এক ঢিলে দুই পাখি মারা = একই সাথে দুই উদ্দেশ্য সাধন করা।

ব্যঞ্জনবর্ণ

কাঁচা বাঁশে ঘুনে ধরা = অপরিনত বয়সে নৈতিক অধঃপতন ঘটা,
কইয়ের ছেলে কই ভাজা = পরের উপর দিয়ে স্বার্থ উদ্ধার।।
কানা ছেলের নাম পদ্মলােচন = যার যে গুণ নেই, তাকে সেই গুণে অভিষিক্ত করা।
কাটা দিয়ে কাঁটা তােলা = শত্রু নাশ।
কনের ঘরে পিসি, বরের ঘরে মাসী = উভয়কে লেলিয়ে দিয়ে স্বার্থ উদ্ধারকারী।
কোথা যাও গােপাল, সঙ্গে যাবে কপাল = ভাগ্য চিরসঙ্গী।
কয়লা যায় না ধুলে, স্বভাব যায় না মরলে = খারাপ লােক সহজে তার স্বভাব পরিবর্তন করতে পারে না।
কাজের বেলায় কাজী, কাজ ফুরালে পাজী = প্রয়ােজনে কাউকে কাছে ডাকা, অপ্রয়ােজনে মুখ ফিরিয়ে নেওয়া।
কাঁচায় না নােয়ালে বাঁশ পাকলে করে ঠাস ঠাস = ছােটবেলায় শিক্ষা না নিয়ে বড় হলে পরিণত বয়সে তা সম্ভব নয়।
কানে দিয়েছি তুলা আর পিঠে বেঁধেছি মুলা = বিশেষ সহ্য শক্তি ও ধৈর্য আয়ত্ত করা।
কপাল গুণে গােপাল ঠাকুর = অদৃষ্ট ভাল থাকিলে যােগ্যতাহীন লােকও বড় হয়।
কানা গরু বামুনকে দান = অকেজো জিনিস দান করিয়া দানের পূণ্য লাভের চেষ্টা করা।
কুমিরের সঙ্গে বিবাদ করে জলে বাস করা = যাহার যেখানে প্রভুত্ব সেখানে তাহার সঙ্গে বিরােধ করিয়া থাকা যায় না।
কষ্ট না করলে কেষ্ট মিলে না = সাধনা ছাড়া সাফল্য লাভ করা যায় না।
কাঙালের কথা বাসি হলে খাটে = গুরুত্ব না দেওয়া লােকের কথার দাম বিপদে পড়িলেই বােঝা যায়।
কারাে পৌষ মাস, কারাে সর্বনাশ = একের লাভে অন্যের ক্ষতি।
কেউ মরে বিল ছেচে, কেউ খায় কৈ = একের পরিশ্রমে অন্যের বিলাসিতা।
কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে সাপ বেরােনাে = তুচ্ছ বিষয়ের সূত্রে জটিল সমস্যার উদ্ভব।
                                   
খিদে পেলে ভাঘে ধান খায় = প্রয়ােজনের আধিক্য।
খাল কেটে কুমীর আনা = নিজের বিপদ নিজে ডেকে আনা।
খুঁটির জোরে ভেড়া নাচে = শক্তিশালী ব্যক্তির পৃষ্ঠপােষকতায় অযােগ্য ব্যক্তিরও শক্তি দেখানাে সম্ভব।
খাস তালুকের প্রজা = খুব অনুগত ব্যক্তি।
                                 
গাঁয়ে মানে না আপনি মােড়ল = অন্যে না মানিলেও নিজেকে বড় বলিয়া মনে করা।
গােনা গরু বাঘে খায় না = হিসেবের গরু বাঘে খায় না।
গরু মেরে জুতাে দান = কাহারও যথেষ্ট ক্ষতি করিয়া পরে তাহারই সামান্য উপকার করা।
গাছে কাঁঠাল গোঁফে তেল = ভবিষ্যতের দরুশয় উদগ্রীব হইয়া থাকা।
গাছেরও খায়, তলারও কুড়ায় = একই সঙ্গে একাধিক স্বার্থসিদ্ধি
গেঁয়াে যােগী ভিখ পায় না = নিজের এলাকায় গুণীর আদর নেই।
ঘরপােড়া গরু সিঁদুরে মেঘ দখে ডরায় = বড় বিপদের অভিজ্ঞতা অকারণেই ভীত করিয়া তােলে।
গদাই লস্করী চাল = দীর্ঘসূত্রতার ভাব।
ঘরের খেয়ে বনের মােষ তাড়ানাে = নিজের ক্ষতি করে অন্যের উপকার করা।
ঘু ঘু দেখেছ ফাঁদ দেখনি = চতুর ব্যক্তিকে কৌশলে জব্দ করার ইঙ্গিত।
                               
চকচক করিলে সােনা হয় না = চেহারাতে আসল গুণ ধরা যায় না।
চোরা না শােনে ধর্মের কাহিনী = উপদেশ দিয়া অসৎকে সৎ করা যায় না।
চাচা আপন প্রাণ বাঁচা = নিজের জীবন রক্ষা করিয়া তারপর অন্যকে সাহায্যের জন্য হাত বাড়াও।
চামচিকেও পাখি, ডিপুটিও হাকিম = আকারে বা চালচলনে বড় বলিয়া মনে হইলেই প্রকৃত বড় হয় না।
চেনা বামুনের পৈতে লাগে না = যােগ্য লােকের জন্য সুপারিশ লাগে না।
চোর পালালে বুদ্ধি বাড়ে = ঘটনা ঘটিয়া যাইবার পর তাহা এড়াইবার পথ পাওয়া।
চোরে চোরে মাসতুতাে ভাই = অপরাধীরা একে অন্যের সাহায্যকারী হয়।
চোরা না শুনে ধর্মের কাহিনী = মন্দ লােক ভাল উপদেশে কান লেয় না।
চোরের সাক্ষী গাঁট কাটা = মন্দ লােকই মন্দ লােককে সাহায্য করে।
                                       
ছেঁড়া কাঁথায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন দেখা = অসম্ভব কল্পনা করা।
ছাই ফেলতে ভাঙ্গা কুলাে = সামান্য কাজের সামান্য পাত্র।
ছুঁচ হয়ে ঢুকে ফাল হয়ে বেরােনাে = দয়াপ্রার্থী হইয়া ঢুকিয়া বিরাট অনিষ্ট করিয়া চলিয়া যাওয়া।
ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি = কোন অবাঞ্চিত ঝামেলা হইতে মুক্তি পাইবার আকুলতা।
                                 
জোর যার মুলুক তার = শক্তিশালীরাই টিকে থাকে।
জুতাে সেলাই থেকে চণ্ডিপাঠ = ছােট-বড় যাবতীয় কাজ করা।
                                 
ঝােপ বুঝে কোপ মারা = সুযােগের সদ্ব্যবহার করা।
ঝড়ে বক মরে ফকিরের কেরামতি বাড়ে = অন্যের দ্বারা সম্পাদিত কৃতিত্ব নিজের বলে দাবি করা।
                                   
ঠগ বাছতে গাঁ উজাড় = যেখানে মন্দের সংখ্যাধিক্য, সেখানে ভাল বাছাই করা যায় না।
ঠেলার নাম বাবাজী = চাপে পড়ে নতি স্বীকার করা।
                               ড/চ
ডুবে ডুবে জল খাওয়া = গােপনে গোপনে কোন কাজ করা।
ঢাল নেই তলােয়ার নেই নিধিরাম সর্দার = ক্ষমতা নেই কিন্তু আস্ফালন আছে।
টেকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে = সর্বত্রই যে একই রকমের দায়-গায়িত্ব বহন করে।
ঢেকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে = অদৃষ্ট সর্বত্র সঙ্গে সঙ্গে যায়
                               
 তপ্ত ভাতে নুন জোটে না, পান্তা ভাতে ঘি = প্রয়ােজনীয় কাজ সামলাইবার সামর্থ্য নাই যখন, তখন অপ্রয়ােজনীয় কাজের প্রতি ঝোঁক দেখানাে।
তেলা মাথায় তেল দেয়া = যার আছে, তাকে আরও দেওয়া।
তুমি ফের ডালে ডালে, আমি ফিরি পাতায় পাতায় = চালাকের চেয়েও বেশি চালাকি করা।
                                       

দশ চক্রে ভগবান ভূত = একাধিক লােকে মিলে ভালকেও মন্দ বলে প্রতিপন্ন করা।
দুধের সাধ ঘােলে মেটে না = আসল জিনিসের আনন্দ নকলে পাওয়া যায় না।
দশের লাঠি একের বােঝা = একজনের পক্ষে যাহা কঠিন, দশজনের পক্ষে তাহা অতি সহজ।
দাঁত থাকতে দাঁতের মর্ম বােঝে না = কোন কিছুর অভাব না হলে সে বিষয়ের গুরুত্ব অনুধাবন করা যায় না।
দুধ-কলা দিয়ে কালসাপ পােষা = শত্র“কে সযুত্বে প্রতিপালন।
দৈত্যকুলের প্রহলাদ = মন্দ পরিবেশে ভাল লােক ।
                                       
ধরি মাছ না ছুই পানি = কিছু মাত্র বেগ না পেয়ে হয় এমন কৌশলে সিদ্ধি।
ধরাকে সরাজ্ঞান করা = কাউকে পরােয়া না করা।
ধর্মের ঢাকা আপনি বাজে = শেষ পর্যন্ত সত্য প্রকাশ পাবেই।
ধর্মের কল বাতাসে নড়ে = অন্যের সমালােচনা না করিয়া নিজের কাজ নিজে করা।
                                     
নেড়া দুবার বেলতলায় যায় না = একই বিপদে মানুষ অধিকবার পতিত হয় না।
নানা মুনির নানা মত = বিভিন্ন লােকের বিভিন্ন মত।
নাই মামার চেয়ে কানা মামা ভাল = না থাকার চেয়ে সামান্য থাকাই ভাল।
নাচতে না জানলে উঠান বাঁকা = অকেজো লােক কাজের অসাফল্যের জন্য অন্যের দোষ দেয়।
নুন খাই যার, গুণ গাই তার = উপকারীর উপকার করা।
নুন আনতে পানতা ফুরায় = দারিদ্রস্ত জীবন
নাকের বলদে নরুন = ভিন্ন জিনিসে সামন্য ক্ষতিপূরন।
                                   
পেটে খেলে পিঠে সয় = লাভের প্রত্যাশায় কষ্ট সহ্য করা।
পথ চলবে জেনে, কড়ি নেবে গুণে = পথের ভালােমন্দ জেনেশুনে পথ চলতে হয় এবং কারও কাছ থেকে টাকা পয়সা নেওয়ার সময় গুণে নিতে হয়।
পরের ধনে পােদ্দারি = অপরের অর্থ যথেষ্ট ব্যয় করা।
পরের মাথায় কাঁঠাল ভাঙা = অপরকে কষ্ট দিয়ে নিজের স্বার্থ হাসিল
পাপের ধন প্রায়শ্চিত্তের যায় = অসদুপায়ে অর্জিত ধন অসৎ পথেই ব্যয়িত হয়।
পরের ঘারে বন্দুক রেখে শিকার = অন্যের উপর সায় রাঘিয়া স্বার্থ উদ্ধার করা।
পর্বতের মুষিক প্ৰসৰ = বিরাট আড়ম্বরের তুচ্ছ পরিণতি
পিড়েয় বসে পেঁড়াের খরচ = নগন্য লােকের গুরত্বপূর্ন খবর রাখা।
                                     
বজ্র আটুনি ফস্কা গেরাে = বাইরে শক্তিমান ভেতরে দুর্বল
বাঁশের চেয়ে কঞ্চি বড় = বাপের চেয়ে ছেলের তেজ বেশি।
বামুন হয়ে চাঁদে হাত = ছােটর অতি বড় শখ ।
বসতে পেলে শুতে চায় = কিছু সুবিধা পাইলে আরাে অধিক সুবিধা দাবি করা।

বিনা মেঘে বজ্রপাত = আকস্মিক বিপদ উপস্থিত হওয়া।
বিষ নেই তার আবার কুলােপনা চক্কর = ক্ষমতাহীনের অহেতুক
বাঘে ছুলে আঠার ঘা = দুষ্ট লােকের পালায় পড়লে কিছু না কিছু ক্ষতি হবেই।
বার হাত কাঁকুড়ের তের হাত বীচি = মূল বিষয় অপেক্ষা অপ্রয়ােজনীয় বিষয়ের বাড়াবাড়ি।
বিনা বাতাসে পাতা নড়ে না = কারণ ছাড়া কোন কাজ হয় না।
বচনে জগৎ তুষ্ট = মিষ্টি কথা বললে সবাই সম্রষ্ট থাকে।
                                     
ভাগ্যবানের বােঝা ভগবানে বয় = ভাগ্যবান লােকেরা কোথাও আটকায় না।
ভাত ছড়ালে কাকের অভাব হয় না = টাকা থাকিলে কাজের লােকের অভাব হয় না।
ভিক্ষের চাল কাঁড়া আর আকাড়া = দয়ার দানের ভাল-মন্দ বিচার চলে না।
                                     
মােল্লার মৌড় মসজিদ পর্যন্ত = কার্যক্ষমতার নির্দিষ্ট সীমা।
মরা হাতি লাখ টাকা = মূল্যবান বস্তুর কিছু ক্ষতি হলেও অবশিষ্ট অংশের মূল্য থাকে প্রচুর।
মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পাতন = কোন কাজ সম্পাদন করার
জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হওয়া।
মশা মারতে কামান দাগা = সামান্য ব্যাপারে বিরাট আয়ােজন।
মরা বাঘকে কিলিয়ে মারা = মিথ্যা বাহাদুরী
                                   
যত গর্জে তত বর্ষে না = আড়ম্বর অনুযায়ী কাজ না হওয়া।
যাকে দেখতে নারি তার চলন বাঁকা = যাকে পছন্দ হয় না, তার
প্রত্যেক কাজেই দােষ।
যার লাঠি তার মাটি = জোর যার মুলুক তার।
যার জ্বালা সেই জানে = ভুক্তভােগীই যথার্থ দুঃখ উপলদ্ধি করতে পারে।
যত দোষ নন্দঘােষ = কোন দুর্বল ব্যক্তিকে সব দোষের জন্য দায়ী করা।
যতক্ষণ শ্বাস, ততক্ষণ আশ = শেষ অবধি আশা ত্যাগ না করা।
যার জন্য চুরি করি সেই বলে চোর = যাহার উপকার করা হইল, সে-ই যখন নিন্দা করে।
যার কর্ম তার সাজে, অন্য লােকের লাঠি বাজে = যে লােক যে কাজের যােগ্য নয়, তাহার দ্বারা সে কাজ হয় না।
যেখানে বাঘের ভয় সেখানে রাত হয় = একাধিক বিপদ একসঙ্গে ঘটা।
যেমন বুনাে ওল, তেমনি বাঘা তেঁতুল = সেয়ানে সেয়ানে মুখােমুখি।
                                     
রথ দেখা কলা বেচা = এক ঢিলে দুই পাখি মারা।
রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয়, উলুখাগড়ার প্রাণ যায় = ক্ষমতাবানদের দ্বন্দের ফলে সাধারণ লােকের জীবন বিপন্ন হওয়া।
                                   
লাগে টাকা দেবে গৌরীসেন = অন্যের উপর ভরসা করিয়া বেহিসাবে খরচ করা।
লেবু কচলালে তেতাে হয় = যে কোন ব্যাপারে বেশি ঘাঁটাঘাঁটি করিলে অশান্তির উদ্রেক হয়।
                             শ/স
শিকারি বিড়াল গোঁফে চেনা যায় = হাবভাব দেখিয়া বােঝা যায়।
সাপের হাঁচি বেদে চেনে = প্ৰকৃত লক্ষণ অভিজ্ঞ লােকই বােঝে।
সস্তার তিন অবস্থা = সস্তার দ্রব্য প্রায়ই খরাপ থাকে।
সবুরে মেওয়া ফলে = ধৈর্যে সুফল ফলে।
সময়ের এক ফোঁড়, অসময়ের দশ ফোঁড় = সময় থাকিতে সাবধান হইলে বিপদকালে রেহাই পাওয়া যায়।
সাপ হয়ে কাটো তুমি, ওঝা হয় ঝড়াে = উভয় পক্ষের পরামর্শদাতা হিসেবে যে কপটতা করে।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url