Breaking

Friday, February 18, 2022

ভক্তিবাদী ও সুফি আন্দোলন দেখা দিয়েছিল কেন?

উত্তরঃ সুলতানি যুগ থেকে হিন্দুধর্ম ও ইসলামধর্ম দুটি বিরাট সামাজিক শক্তি হিসেবে পাশাপাশি অবস্থান করতে শুরু করে। ফলে তাদের মধ্যে দেওয়া-নেওয়া চলতে থাকে। হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে ঐক্যের পথটি ধীরে ধীরে প্রসারিত হয়ে ওঠে।
ভক্তিবাদের মূল কথাই হল—যে নামেই ডাকা হােক না কেন ঈশ্বর ও আল্লা এক। ভক্তি, প্রেম ও ভালােবাসার মাধ্যমে তাকে লাভ করা যায়। মানুষ মাত্রেই ভগবানের সন্তান। সুতরাং ধর্মে-বর্ণভেদ, জাতিভেদ, উচ্চ-নীচ ভেদাভেদের স্থান নেই। এদের এই মহামিলনের বাণী এবং ধর্মীয় সরলতা হিন্দু ও মুসলমান উভয় সম্প্রদায়কেই আকৃষ্ট করেছিল। এদের মধ্যে শ্রীচৈতন্য, গুরু নানক ও কবীরের নাম সবিশেষ উল্লেখযােগ্য। রামানন্দ, বল্লভাচার্য, মীরাবাঈ, নামদেবও বিশিষ্ট ভক্তিবাদী ছিলেন।
মুসলমান সমাজের মধ্যেও এই সময়ে ভক্তিবাদ ও প্রেমময় জীবনাদর্শের ভাবনা দিতে থাকে। এই আদর্শের যারা প্রবক্তা তাদের বলা হত সুফি ও ফকির। সুফিরা ছিলেন অতীন্দ্রীয়বাদী। সুফি-ফকিররা হিন্দু ও মুসলমানের মঙ্গল ও মিলনের কথা বলেছেন। এঁরা আজও সব সম্প্রদায়ের শ্রদ্ধার পাত্র।

আরো পড়ুন-
1. ভক্তিবাদী আন্দোলনের শ্রীচৈতন্য ও গুরু নানক এর অবদান কি ছিল?
2. ভক্তিবাদ কাকে বলে? কয়েকজন ভক্তিবাদী প্রচারকের নাম বল?
3. হোসেন শাহের শাসন কালকে বাংলার ইতিহাসের স্বর্ণযুগ বলা হয় কেন?

No comments:

Post a Comment

কোন প্রশ্নের উত্তর ভুল থাকলে অবশ্যই কমেন্টে জানাবে ( কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স সময়ের সাথে সাথে উত্তর পরিবর্তন হয়)